সঙ্কেত ডেস্ক: লালকৃষ্ণ আদবাণীকে বড় সম্মান দিতে চলেছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। ‘আয়রন ম্যান’ আদবাণীকে দেশের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘ভারতরত্ন’ দিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার।
কেন্দ্রের মোদি জমানায় ক্রমশ অপ্রাসঙ্গিক হয়ে পড়েছিলেন রাম মন্দির আন্দোলনের অন্যতম এই কারিগর। রাম রথ যাত্রা করে বিজেপির উত্থানের কাণ্ডারিও ছিলেন তিনি।শেষমেশ গুরুদক্ষিণা দিলেন নরেন্দ্র মোদি। সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের মাধ্যমে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানালেন, ভারতরত্ন সম্মান দেওয়া হচ্ছে লালকৃষ্ণ আদবাণী-কে। এই নিয়ে ৯৬ বছর বয়সী আদবাণীকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। ২০১৫ সালে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান পদ্ম-বিভূষণে ভূষিত করা হয়েছিল আদবাণীকে।
বিজেপির ইতিহাসে তিনিই দলের সবচেয়ে বেশী দিন সভাপতি থাকার নজির গড়েছেন। ১৯২৭ সালে ব্রিটিশের অধীনে থাকা পাকিস্তানের করাচিতে তাঁর জন্ম হয়েছিল। ১৯৪৭ সালে আরএসএসের সচিব থেকে রাজনীতির কেরিয়ার বড় দায়িত্ব নেওয়া শুরু। ১৯৭০ সালে প্রথমবার রাজ্যসভায় নির্বাচিত হন আডবাণী। ১৯৯৮-২০০৪ অটল বিহারী বাজপেয়ীর মন্ত্রিসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের দায়িত্ব সামলে ছিলেন আদবাণী। ২০০২-২০০৪ উপপ্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন।২০০৯ লোকসভা নির্বাচনে আদবাণীকে প্রধানমন্ত্রী প্রজেক্ট করেছিল বিজেপি। সেই ভোটে ভরাডুবি হয় বিজেপির। বারবার প্রধানমন্ত্রীর সিংহাসনের কাছে পৌঁছেও খালি হাতে ফিরতে হয়েছে আদবাণীকে। কখনও বাজপেয়ী, কখনও মোদীর ছায়ায় ম্লান হয়েছেন তিনি। অনেক সময়ই ভাগ্য তাঁর সঙ্গ দেয়নি। জোর জল্পনা ছিল, নরেন্দ্র মোদী হয়তো আদবাণীকে রাষ্ট্রপতি পদে বসাতে পারেন। কিন্তু সেই জল্পনা মেলেনি। কদিন আগে আদবাণীকে অযোধ্যায় রাম মন্দির উদ্বোধনে দেখা যায়নি। তখন অনেকেই তাঁকে কোণঠাসা করার অভিযোগ তুলে ছিলেন। অবশেষে আদবাণীকে ভারতরত্ন দিয়ে গুরুদক্ষিণা দিলেন মোদী, এমন কথাই বলছেন অনেকে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *