সঙ্কেত ডেস্ক: সম্প্রতি সংসদে পাস হয়েছে নয়া ফৌজদারি আইন। যেখানে বলা হয়েছে হিট অ্যান্ড রানের ক্ষেত্রে ১০ বছরের কারাদণ্ডের কথা। তার প্রতিবাদের সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন রাস্তায় লরি থামিয়ে বিক্ষোভ দেখান চালকরা। তাঁদের বিক্ষোভে কার্যত অচল হয় দেশের অর্থনীতি। সেই বিক্ষোভ থামাতেই কেন্দ্রীয় প্রতিশ্রুতিতে তা তুলেও নেওয়া হয়।
কিন্তু তার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই হিট অ্যান্ড রানের বলি হলেন রাজ্যের দুই পুলিশ কর্মী। হাওড়ার উলুবেড়িয়ায় কর্তব্যরত অবস্থায় লরির ধাক্কায় প্রাণ গেল সাব ইন্সপেক্টর সুজয় দাশ এবং হোমগার্ড পলাশ সামন্তের। এই ঘটনায় আহত আরও দুই।
জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার বাগনান বরুণদা মুম্বই রোডে গভীর রাতে ডিউটি করছিলেন সুজয় দাস (সাব ইন্সপেক্টর), পলাশ সামন্ত (হোম গার্ড), অলোক বর (কনস্টেবল) ও সুকদেব বিশ্বাস (কনস্টেবল)। এছাড়াও ছিলেন বক্কর আলি যিনি গাড়ির চালক।রোডের উপরই দাঁড়িয়েছিল পুলিশের গাড়িটি। সেই সময় কোলাঘাটের দিক থেকে বাগনানের দিকে আসা একটি বেপরোয়া লরি পুলিশের গাড়ির পিছনে ধাক্কা মেরে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় সাব ইন্সপেক্টর সুজয় দাস ও পলাশ সামন্তর। এ দিকে, বিষয়টির খবর পেয়ে বাগনান থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে চারজনকে উদ্ধার করে উলুবেড়িয়া হাসপাতালে নিয়ে যায়। চিকিৎসকরা সুজয় এবং পলাশকে মৃত বলে ঘোষণা করে। আর দুই পুলিশ কর্মী গুরুতর আহত হওয়ায় তাদের উলুবেড়িয়া শরৎচন্দ্র মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে দেখা করেছেন পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা।

স্থানীয় বাসিন্দা আর্য শাহ বলেন, “আমি আওয়াজ পেয়ে বাইরে বেরিয়ে দেখি দুই পুলিশ মারা গিয়েছে। তিনজন আরও ছটফট করছেন। পরে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।”

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *