নিজস্ব প্রতিনিধি: নানান বিতর্কের মাঝে আবারও পুলিশের মানবিক মুখ দেখল জনতা । মানসিক বিকার গ্রস্থ এক যুবকের চিকিৎসার উদ্যোগ নিল পুলিশ।

জানাগেছে পিকনিক মরশুমে মাইথন ড্যাম্পের উপর ইতস্তত ঘুরে বেড়াচ্ছে যুবকটি, নজর পড়ে কল্যানেশ্বরী ফাঁড়ির পুলিশের।যুবকটির কাছে গিয়ে তার পরিচয় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ।কিন্তু বছর ত্রিশের ওই যুবক তার নিজের সম্বন্ধে কিছুই মনে করতে পারছেন না, বলতে পারছেন না নাম ঠিকানা মোবাইল নম্বর কিংবা বাড়ির হদিশ। অগত্যা পুলিশ তাকে গাড়িতে বসিয়ে নিয়ে আসে কল্যানেশ্বরী পুলিশ ফাঁড়িতে। সেখানে তাকে গরম কাপড় জামা,খাবার দাবার দিয়ে বন্ধু হয়ে তার সাথে কথা বলে তার সম্বন্ধে জানার চেষ্টা করেন কল্যাণেশ্বরী ফাঁড়ির ইনচার্জ উজ্জ্বল সাহা।উজ্জ্বল সাহা বুঝতে পারেন সম্ভবত উত্তরবঙ্গের কোনো এলাকা থেকে সে এই মাইথনে এসে পড়েছে।এরপর জলপাইগুড়ি শিলিগুড়ি সহ বিভিন্ন থানায় ছবিসহ তিনি যোগাযোগ শুরু করেন যদি যুবকটির পরিচয় উদ্ধার করা যায়।কিন্তু কোন ভাবেই তার কোন হদিস উদ্ধার করতে না পেরে ফাঁড়ির ইনচার্জ উজ্জ্বল সাহা উদ্যোগ নেন তার মানসিক চিকিৎসা করানোর। ১৫ জানুয়ারি দুপুরের দিকে যুবকটিকে নিজেদের আয়ত্তে নেওয়ার পর ১৬ তারিখ আসানসোল জেলা হাসপাতালে তাকে নিয়ে যান চিকিৎসা জনিত বিষয়গুলি বুঝে নেওয়ার জন্য। সেখানে এক প্রস্থ যুবকটির চিকিৎসা করিয়ে তারপর আসানসোল আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে তাকে পুরুলিয়া মানসিক হাসপাতালে নিয়ে যান কল্যাণেশ্বরী ফাঁড়ির পুলিশ। তাদের লক্ষ্য একটাই – ওই যুবককে সুস্থ করে তুলে বাড়ি ফিরিয়ে দেওয়া।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *