নিজস্ব প্রতিনিধি, পশ্চিম মেদিনীপুর

মঙ্গলবার সকালে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনী কর্ণগড় এর মোহনপুর এলাকায় এক এক পঁয়ত্রিশ বছরের যুবকের দেহ উদ্ধারকে ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়।
জানা গিয়েছে,ওই এলাকায় একটি পারাং নদীর খালে তথা একটি কালভার্টের নীচে স্থানীয় যুবক তথা বিজেপির সমর্থকের রক্তাক্ত মৃতদেহ দেখতে পান এলাকার স্থানীয় মানুষজন। ঘটনার পরেই এলাকায় শোরগোল পড়ে যায়। তৎক্ষণাৎ স্থানীয় মারফত পুলিশে খবর দেওয়া হলে শালবনী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করে। জানা যাচ্ছে মৃত যুবকের নাম মিঠুন খামরই(৩৫)। বাড়ি শালবনীর কর্ণগড় এলাকায়।
মৃত যুবকের পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে,সোমবার বিকেলে মোহনপুরে একটি মেলায় গিয়েছিল, তারপর রাতে সে বাড়ি ফেরেনি। সকালে প্রতিবেশী মারফত মিঠুন এর মৃত্যুর খবর জানতে পারেন পরিবারের সদস্যরা।
এদিকে,ঘটনার পরেই বিজেপি নেতৃত্বের পক্ষ থেকে শাসক দলের দিকে আঙ্গুল তুলে সরাসরি খুনের অভিযোগ তোলে।
ঘটনায় বিজেপির স্থানীয় মণ্ডল সহ-সভাপতি গোপাল মিদ্যার অভিযোগ, ওই যুবক ও তাঁর পরিবার বিজেপির সমর্থ ছিলেন।সে ও তাঁর পরিবার বিজেপি করায় বারংবার শাসক দলের তরফে হুমকি দেওয়া হত। আরও অভিযোগ, গত ২০২১ সালে বিধানসভা নির্বাচনের পর তার গোটা পরিবার একমাস ঘরছাড়া ছিল। পরিকল্পনা মাফিক ওই যুবক কে খুন করা হয়েছে বলেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন গেরুয়া শিবির।
যদিও তাঁদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূল শিবিরের দাবি,ওই যুবক সরাসরি কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত ছিল না। তবে কিভাবে মৃত্যু হয়েছে, তা পুলিশ সঠিক তদন্ত করে দেখুক।
এদিকে যুবকের রহস্য মৃত্যুকে ঘিরে তৃণমূল – বিজেপি যুযুধান দুই পক্ষের মধ্যে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপান-উত্তর।
ইতিমধ্যেই যুবকের দেহ উদ্ধার করে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে,গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে শালবনী থানার পুলিশ।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *