তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর:

ঘরে ফিরেছেন রাম লালা ।প্রাণ প্রতিষ্ঠা ঘিরে গোটা দেশজুড়ে উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়েছে। কোটি কোটি ভক্তের সমাগম হয়েছিল অযোধ্যায়। গোটা দেশ পালন করেছেন এই রামলালার প্রতিষ্ঠা তিথি।রাম মন্দির উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে পূজো পাঠের আয়োজন করা হয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সেজে উঠেছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের রাম মন্দির গুলি। তেমনি বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অনেক রাম মন্দির সেখানেও চলছে সকাল থেকে পুজো অর্চনা। রাম মন্দির উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে গোটা দেশজুড়ে এখানে উৎসবে মেতে উঠেছে এক অকাল দীপাবলীর উদযাপিত হচ্ছে।
একই চিত্র দেখা গেল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ডেবরায়।ডেবরা বজরং দলের উদ্যোগে বাড়াগড় হনুমান জীউর মন্দিরে নিষ্ঠাচারে শুরু হয় পূজাপাঠ , পাশাপাশি হরিহরপুর বজরং দলের সমন্বয়ে ডেবরা বজরং দল বিরাট র‍্যালি সহকারে গোটা ডেবরা এলাকা পদক্ষিণ করে।ভক্তরা নিষ্ঠা সহকারে পূজা করেন আনন্দে আত্মহারা হয়ে ওঠেন তারা। এদিন মন্দিরের সামনে থেকে খিচুড়ি বিতরণ করা হয় জনসাধারণের মধ্যে।
পাশাপাশি এদিন ডেবরার রাধামোহনপুরে রাম মন্দির প্রতিষ্ঠার দিনে একটি মন্দিরে নিষ্ঠাচারে পূজো দিলেন বিজেপির ঘাটাল সাংগঠনিক জেলার সভাপতি তন্ময় দাস। এরপর র‍্যালি করে এলাকা পদক্ষিণ করা হয়।
কোথাও অযোধ্যায় রাম মন্দিরের আদলে তৈরি হয়েছে রাম মন্দির আবার কোথাও বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বার করা হয়েছে।
এদিন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সবং এ নর্মদেশ্বর মন্দিরে পুজোয় যোগ দেন অভিনেতা তথা খড়গপুরের বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায়। পাশাপশি এদিন বিধায়কের সাথে একাধিক কর্মসূচি ও প্রসাদ বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সবং য়ের দাপুটে বিজেপি নেতা তথা ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সহ সভাপতি অমূল্য মাইতি।
প্রভু শ্রী রামের প্রাণ প্রতিষ্ঠা ঘিরে গোটা দেশজুড়ে যেনো উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়েছে। কোটি কোটি ভক্তের সমাগম হয়েছিল অযোধ্যায় কিন্তু যারা অযোধ্যায় যেতে পারেননি তারা নিজে নিজে এলাকাতেই পালন করলেন রামলালার প্রতিষ্ঠা তিথি।গোটা দেশের মতন আনন্দে আত্মহারা সারা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *