সঙ্কেত ডেস্ক:রাজ্যের তৃণমূল বিধায়কের বিরুদ্ধে থানায় এফআইআর। অভিযোগকারী তৃণমূলেরই নেত্রী। বৃহস্পতিবার হুগলির বলাগড়ের বিধায়ক মনোরঞ্জন ব্যাপারীর বিরুদ্ধে থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করলেন বাংলার শাসক দলের বলাগড়ের নেত্রী রুনা খাতুন। রুনার অভিযোগ, ফেসবুকে তাঁর বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন বিধায়ক।
ঘটনার সূত্রপাত বুধবার। জেলার নেত্রীকে ফুলন দেবী বলে অভিযোগ করেছিলেন বিধায়ক। নিজের ফেসবুক থেকে ওই পোস্ট পরে মুছে দিলেও, তা আগেই ভাইরাল হয়।বুধবার রাতে জিরাটে মনোরঞ্জন ব্যাপারীর কার্যালয়ে ভাঙচুর চালায় তৃণমূলের একাংশ। শাটার ভেঙে ঢুকে টেবিল চেয়ার সব গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। এব্যাপারে রুনা বলেন, গণরোষের শিকার হয়েছেন বিধায়ক। এর সঙ্গে তৃণমূলের যোগ নেই। একই সঙ্গে বিধায়কের অনুগামী এক পঞ্চায়েত সদস্যের বাড়িতেও হামলা হয়েছে। ভাঙা হয়েছে জানলার কাচ।আর গত কালের সেই পোস্টকে হাতিয়ার করেই এদিন বলাগড় থানায় যান রুনা। অভিযোগ করেন বিধায়কের বিরুদ্ধে। যদিও কুকথা লেখার অভিযোগ স্বীকার করে মনোরঞ্জন বলেন, ‘পোস্টটা ২০ সেকেন্ডের মতো ফোসবুকে ছিল। তার পর আমি মুছে দিই। কিছু লোক শকুনের মতো আমার পেইজের দিকে তাকিয়ে থাকে। তারা তার মধ্যেই স্ক্রিনশট নিয়ে রেখেছে। আমার স্ত্রী – কন্যা রয়েছে। ওই পোস্ট করার জন্য আমি দুঃখিত। এজন্য আমি রুনার কাছেও ক্ষমা চাইতে পারি।’ পাশাপাশি মনোরঞ্জন বলেন, ‘আমি বলাগড়ে থাকলে অনেকের সমস্যা হচ্ছে। বালি – মাটি থেকে টাকা তুলতে সমস্যা হচ্ছে। শীর্ষ নেতৃত্ব ও প্রশাসনের একাংশকে নিয়ে এতদিন লড়েছি। এবার এর একটা হেস্ত নেস্ত করব।’
পালটা রুনা খাতুন বলেন, বিধায়কের কাছে কোনও প্রমাণ থাকলে তিনি থানায় অভিযোগ করুন। উনি অযথা আমাকে আক্রমণ করছেন। বিধায়ক কোনও নীতি – নিয়ম মানেন না। আমাদের কাছে সমস্ত প্রমাণ রয়েছে। সময় হলেই বার করব।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *