নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুর : প্রবল উৎসাহ ও উত্তেজনায় পরিপূর্ণ পরিবেশে ২১-শে ডিসেম্বর দুর্গাপুরের নেহেরু স্টেডিয়ামে পালিত হল দিল্লি পাবলিক স্কুল, দুর্গাপুর-এর বার্ষিক ক্রীড়া দিবস অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন ভারতীয় অলিম্পিয়ান ও অর্জুন পুরস্কার প্রাপ্ত ক্রীড়াবিদ মাননীয় শ্রী রাহুল ব্যানার্জি মহাশয়।

বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মাননীয় শ্রী উমেশ চন্দ জয়সওয়াল মহাশয়ের স্বাগত ভাষণের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়। বক্তব্যের শুরুতে মাননীয় অধ্যক্ষ মহাশয় ছাত্রছাত্রীদের বাবা-মায়েদের অকুণ্ঠ সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি শিক্ষার্থীদের মনে করিয়ে দেন যে, খেলাধুলার ক্ষেত্র জীবনের মতোই। এখানে বাধা ও বিপত্তি তাদের আরও শক্তিশালী করে তুলবে। তিনি আরও বলেন যে, পরিচালন সমিতির সদস্যরা অক্লান্ত পরিশ্রম, সজাগ দৃষ্টি দিয়ে এই পরিবেশ গড়ে তুলেছেন। যে কারণে এতবড়ো একটি প্রতিযোগিতা সফলভাবে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। এরপর বিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলনের পাশাপশি এদিনের প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্য উপস্থিত সকলের সামনে তুলে ধরেন। প্রধান অতিথি মাননীয় শ্রী রাহুল ব্যানার্জি মহাশয় বলেন, আমি নিশ্চিত প্রতিযোগীরা সততার সঙ্গে অংশগ্রহণ করে তাদের সেরাটা দিয়ে আজকের এই প্রতিযোগিতাটিকে সফল করে তুলবে। আমি তাদের এই প্রচেষ্টাকে অভিনন্দন জানাই।

প্রায় ৪০০০ জন অভিভাবক বিশাল স্টেডিয়ামে উপস্থিত হয়েছিলেন স্কুল ক্যালেন্ডারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানের সাক্ষী হতে।

ক্রীড়া দিবসের সূচনাটি হয়েছিল স্কুলের চার হাউসের অধিনায়কদের হাতে ধরে থাকা নিজ নিজ হাউসের পতাকা ও সহ অধিনায়কদের হাতে থাকা প্লাকার্ড এবং ড্রামের তালে তালে ছাত্রছাত্রীর মার্চ পাস্টের মধ্যে দিয়ে। হেডবয় অভীক সিংহ রায় ও হেডগার্ল মিহিকা বাজোরিয়ার উদ্দীপ্ত কমান্ড এবং সকলের শপথ গ্রহণের মধ্যে দিয়ে ক্রীড়া দিবস তার মূল পর্বে প্রবেশ করে।

এরপর স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা ‘লেটস্ ডু দিস’ গানের মাধ্যমে প্রতিযোগীদের অনুপ্রেরণা দেয়। ক্রীড়াবিদদের উচ্ছ্বাস ও উদ্দীপনা সমগ্র নেহেরু স্টেডিয়ামে প্রতিধ্বনিত হয়। তারা যেন গতবছরের রেকর্ড ভাঙার লক্ষ্যে ময়দানে নেমেছিল, যা প্রতিযোগিতাটিকে একটি অনন্য স্তরে নিয়ে গিয়েছিল।

দর্শকদের উল্লাস আর উৎসাহ ট্র্যাক ও ফিন্ড ইভেন্টের প্রতিযোগীদের উদ্দীপ্ত করে তুলেছিল। মঞ্চ থেকে বিজয়ীদের মেডেল দিয়ে সম্মানীত করার সময় সমগ্র স্টেডিয়াম হাততালির আওয়াজে ফেটে পড়ে। বুলবুলের দর্শনীয় ড্রিল, উচ্চশ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের নৃত্যপ্রদর্শনী সহ ক্যারাটের অত্যাশ্চর্য কৌশল আগত দর্শকদের মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখে।

চিত্তাকর্ষক অভিনব রেস, বর্ণময় মার্চ পাস্ট সহ নানা বিভাগে স্কুলের তরুণ ক্রীড়াবিদরা তাদের যথাসর্বস্ব শক্তি দেওয়ার চেষ্টা করে। বিজয়ীদের পুরস্কার দেওয়ার পাশাপাশি অনেক নতুন প্রতিভা দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এছাড়া অন্যান্য ছাত্রছাত্রীরা তাদের হাউসের তাঁবুগুলি সুন্দর সুন্দর পোস্টার দিয়ে সাজিয়ে তুলেছিল। সেরা মার্চ পাস্ট, সেরা ছাত্র ও ছাত্রী ক্রীড়াবিদ, সেরা হাউস,এনক্লোজার ও চ্যাম্পিয়ন ট্রফির মাতন পুরস্কার প্রদান করে বিজয়ীদের সম্মানিত করা হয়।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *