সঙ্কেত ডেস্ক: নবীন–প্রবীণ দ্বন্দ্ব নিয়ে কুস্তির আখড়ায় পরিণত হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর সেটা প্রকাশ্যে চলে এল দলের প্রতিষ্ঠা দিবসের দিনে।বছরের প্রথম দিনেই একাধিক সভার আয়োজন করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। তেমনই একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল নেতা সুব্রত বক্সি। সেই অনুষ্ঠানে লোকসভা নির্বাচনে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মাঠে নামা নিয়ে মন্তব্য করেন তিনি। যা নিয়ে দলের অনেকেই অস্বস্তিতে পড়েছেন বলে সূত্রের খবর। একই সাথে ফিরহাদ হাকিম ও কুণাল ঘোষের পরস্পর বিরোধী মন্তব্যে বছরের প্রথম দিনেই তোলপাড় হল রাজ্য রাজনীতি। আর তা নিয়ে বেজায় অস্বস্তিতে পড়েছেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। এই আবহেই এদিন সন্ধ্যাবেলায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতে হাজির হলেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মেয়র ফিরহাদ হাকিম। পরিস্থিতি সামাল দিতেই কি মমতার দুয়ারে হাজির এই দুই শীর্ষ নেতার আগমন? তা নিয়ে ফের শুরু হয়েছে জল্পনা।
ইংরেজি নতুন বছরের সন্ধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতে প্রথমে হাজির হন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরই সেখানে আসেন ফিরহাদ হাকিম। দাবি করা হয় দু’‌জনের কাছেই কোনও খবর ছিল না পরস্পরের আসার। কী কারণে নেত্রীর বাড়িতে আসা তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে অনুমান করা হচ্ছে দলের অন্দরে নবীন–প্রবীণ দ্বন্দ্ব মিটিয়ে ফেলতেই নেত্রীর বাসভবনে আসা দুই নবীন-প্রবীণ নেতার। এটাও বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। যদিও তাঁরা জানিয়েছেন নতুন বছরে নেত্রীকে শুভেচ্ছা জানাতেই এসেছেন কালীঘাটের বাড়িতে। তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের একাংশ মনে করছেন, এবার তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হস্তক্ষেপে নবীন-প্রবীণ সংক্রান্ত যাবতীয় টানাপোড়েনের অবসান হয়ে যাবে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *