তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর

আসন্ন চব্বিশের লোকসভা ভোট ঘোষণা শুরু হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই জোর প্রচার পর্ব শুরু করে দিয়েছে শাসক বিরোধী দুই শিবির।
এই প্রচার পর্বের মাঝেই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পিংলা বিধানসভা এলাকায় এক বিজেপি কর্মীর দেহ উদ্ধার কে ঘিরে রাজনৈতিক চাপানোর তো শুরু হয়েছে।
জানা গিয়েছে,পিংলা বিধানসভার অন্তর্গত বারবাসি এলাকায় শান্তনু ঘোড়াই নামে এক সক্রিয় বিজেপি কর্মীর দেহ হাত বাঁধা অবস্থায় ধান ক্ষেত থেকে দেহ উদ্ধার হয়। শনিবার সকালে ওই এলাকায় দেহ উদ্ধারের পরেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়।
এ বিষয়ে ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি তন্ময় দাস বলেন,”পিংলার বারবাসি এলাকায় শান্তনু ঘোড়াই আমাদের বিজেপি দলের একনিষ্ঠ কর্মী ছিলেন। গত কয়েকদিন প্রচার পর্বে এলাকায় দেওয়াল লিখন সহ নানা কর্মসূচিতে সে অংশগ্রহণ করেছিল। কিছুদিন আগেই বিজেপি দল ছেড়ে দেওয়ার জন্য তৃণমূলের তরফে তাঁকে হুমকিও দেওয়া হয়। এরপর কাল রাত থেকে ব্যক্তি নিখোঁজ ছিলেন আজ সকালে ধানক্ষেত থেকে তার দেহ উদ্ধার হয়েছে। এই ঘটনার জন্য তৃণমূলকেই সরাসরি দায়ী করেন ঘাটাল সাংগঠনিক জেলার সভাপতি।
ভোট ঘোষণার পরেই রাজ্যে প্রথম পিংলায় বিজেপি কর্মীর দেহ উদ্ধারের ঘটনায় জেলা সহ রাজ্যে যথেষ্ঠ শোরগোল পড়েছে।
রহস্যজনক এই মৃত্যুর ঘটনাটি পিংলা বিধানসভার অন্তবর্তী হলেও খড়গপুর লোকাল থানার এক্তিয়ারে পড়ে। মৃত ব্যক্তির পরিবারের তরফে থানায় অভিযোগ দায়ের করতে গেলে অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে এমনটাই অভিযোগ মৃত ব্যক্তির ভাই সহ পরিবার-পরিজনের।
খবর পেয়ে শনিবার রাতেই খড়গপুর লোকাল থানায় পোঁছে জন ঘাটাল লোকসভার বিজেপি প্রার্থী হিরন্ময় চট্টোপাধ্যায় ও ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা সভাপতি তন্ময় দাস সহ নেতৃত্বরা।
শেষমেষ পুলিশের তরফে অভিযোগ নেওয়া হয়। ঘটনায় বিজেপি প্রার্থী এই হিরণ জানান, “আমরা এই মৃত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্ত দাবি করব। প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলে,এই খুনের পেছনে কাদের ষড়যন্ত্র, তার রহস্য উদঘাটনে বিজেপির লড়াই করবে। আমরা মৃত বিজেপি কর্মীর পরিবারের পাশে আছি।” বলে জানিয়েছিলেন।
আজ রবিবার সকালেই ওই মৃত বিজেপি কর্মীর বাড়ীতে যান ঘাটাল লোকসভার বিজেপি প্রার্থী হিরন। মৃতের পরিবারের সাথে দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন। এরপর হিরণ সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান, “শুধুমাত্র বিজেপি করার অপরাধে তাকে খুন হতে হল। এলাকায় খুব ভালো ছেলে ও সক্রিয় বিজেপি কর্মী ছিলেন শান্তনু। একাধিক বার তাকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে।আজ এক মায়ের কোল খালি হয়ে গেল। তৃনমূলের এই ঘৃণ্য ও খুনের রাজনীতির জবাব মানুষ দেবে। আমরা শহীদ কর্মীর ছোট্ট ছেলের পড়াশুনা সহ সমস্ত দায়ভার দলীয় তরফে নেবো বলে জানিয়েছেন আসন্ন লোকসভার বিজেপি প্রার্থী হিরন।

অন্যদিকে পরিবারের তরফে বিস্ফোরক অভিযোগ, পুলিশ প্রথমে খুনের অভিযোগ নিতেই গড়িমসি করে। পরে বিজেপি নেতৃত্বের চাপে অভিযোগ নেয় পুলিশ। মহামান্য আদালতের নির্দেশ মোতাবেক ময়নাতদন্তের জন্য দাবী তুলছেন মৃতের পরিবার পরিবার পরিজনেরা।
এদিকে এ ঘটনাকে বিজেপি মিথ্যা রাজনীতির প্রচার করছে। এমনটাই জানিয়েছেন পিংলার বিধায়ক অজিত মাইতি। তিনি আরো বলেন নেশার কারণে ওই যুবকের মৃত্যু হয়েছে এখন বিজেপি ভোট নিয়ে নোংরা রাজনীতিতে মেতেছে।
ঘটনায় এলাকায় পরিস্হিতি যথেষ্ঠ জোরালো হচ্ছে। অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর থেকেই খড়গপুর লোকাল থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।
লোকসভার দিনক্ষণ ঘোষণা হলেও, ভোট পর্ব শুরু হতে এখনও ঢের বাকি , কিন্তু তার আগেই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পিংলার ঘটনা সংবাদ শিরোনামে!

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *