সঙ্কেত ডেস্ক: শুক্রবার ২০২৪ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রথম দিনে পরীক্ষা শুরুর আধ ঘণ্টার মধ্যে পরীক্ষাকেন্দ্রের বাইরে চলে এল বাংলা প্রথম পত্রের প্রশ্নপত্র। সেই প্রশ্নপত্রে দেখে ২ জন পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। শুক্রবার বাংলা পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা শেষের আগেই ফোনে ফোনে ঘুরতে দেখা যায় প্রশ্নপত্র।

শুক্রবার সকাল ৯টা ৪৫ মিনিট থেকে শুরু হয়েছে এবছরের মাধ্যমিক পরীক্ষা। ১০টা থেকে পরীক্ষার খাতায় লেখা শুরু করেন পরীক্ষার্থীরা। তার আধ ঘণ্টার পরই মালদা জেলায় মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে পড়ে প্রশ্নপত্র। পরীক্ষা শেষের পর আসল প্রশ্নপত্রের সঙ্গে মিলিয়ে দেখা যায় সেই প্রশ্নপত্রই ছড়িয়েছে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে।কেউ বা কারা ছবি তুলে ওই প্রশ্ন সমাজমাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ। যে প্রশ্ন ছড়িয়ে পড়েছে, পরীক্ষা শেষের পর ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে পাওয়া আসল প্রশ্নপত্রের সঙ্গে তা মিলিয়ে দেখা হয়েছে। প্রশ্ন হুবহু মিলে গিয়েছে। অর্থাৎ, আসল প্রশ্নপত্রের ছবিই কেউ তুলে সমাজমাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন।

ঘটনার খবর পেতেই তদন্ত শুরু করেন মধ্যশিক্ষা পর্ষদের আধিকারিকরা। কিছুক্ষণের মধ্যেই প্রশ্নপত্রে থাকা গোপন কোড মিলিয়ে মালদার ২টি স্কুলের ২ পরীক্ষার্থীকে সনাক্ত করে তারা। তাদের পরীক্ষা সঙ্গে সঙ্গে বাতিল করে পর্ষদ।এই বছর বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করেছিল মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। পাতা হয়েছিল বিশেষ ‘ফাঁদ’।

প্রশ্নপত্রগুলি এবছর এমন ভাবে তৈরি করা হয়েছিল, যাতে কেউ তাঁর ছবি তুললে তাঁকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়। প্রশ্নপত্রে প্রত্যেক প্রশ্নের পাশে একটি করে কিউআর কোড ছেপেছিল পর্ষদ। কেউ ছবি তুললে সেই কিউআর কোডের সূত্রেই ছবিটি কোথা থেকে তোলা হয়েছে, তা চিহ্নিত করা সম্ভব বলে জানিয়েছিল পর্ষদ। রাজ্যের যে কোনও প্রান্ত থেকেই প্রশ্নের ছবি তোলা হোক না কেন, পর্ষদ তা জানতে পারবে বলে দাবি করেছিল।মাধ্যমিকের প্রথম দিনেই ফুল মার্কস পেল সেই ব্যবস্থা। তবে ঠেকানো গেল না প্রশ্ন ফাঁস।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *