বাইজিদ মণ্ডল ডায়মন্ড হারবার: ডায়মন্ড হারবার ১ নম্বর ব্লকে বাসুল ডাঙ্গা অঞ্চলের পঞ্চগ্রাম হসপিটাল এলাকার গ্রামীণ পাকা রাস্তার উপর মাটি বহন করা ট্রলি থেকে পড়া মাটি, সামান্য বৃষ্টিতে ভিজে সৃষ্টি হয়েছে কাদা। এতে রাস্তাগুলো কাদা মাটিতে একাকার হয়ে বেহাল দশার সৃষ্টি হয়েছে। মোটর সাইকেলের চাকা স্লীপ করে দূর্ঘটনার শিকার হতে হচ্ছে। রাজ্য সরকার কয়েক দিন আগে ঘোষণা করেন সরকারি জায়গার উপর কোনো প্রকার জবর দখল ও বেআইনি কাজ করা যাবে না।এই কারনে বে আইনি মাটি ব্যবসায়ীদের উপর ক্ষোভ বেড়েছে পথচারীদের।বৃহস্পতিবার ২৭ শে জানুয়ারি ২০২৪ সকালে দেখা গেছে বাসুল ডাঙ্গা অঞ্চলের পঞ্চগ্রাম রুরাল হসপিটাল মোড় এলাকার রাস্তার পাশ্ববর্তী রাস্তাগুলোয় এমন দৃশ্য। বৃহস্পতিবার সকালে সামান্য বৃষ্টির পর থেকে রাস্তাগুলোতে কাদা মাটি ভিজে একাকার হয়ে যায়। ফলে এসব রাস্তা দিয়ে চলাচল করা কষ্টকর হয়ে পড়ে। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগের শিকার হয় মোটরসাইকেল ও ছোট ছোট গাড়ির চালকরা। বিশেষ করে ইমার্জেন্সী রুগীদের চরম ঝুঁকি নিয়ে পৌঁছাতে হচ্ছে হসপিটালে। পাকা রাস্তার উপর ভিজা কাদা-মাটিতে একাকার হয়ে সৃষ্টি হয়েছে এক মরণ ফাঁদ। এসব রাস্তা দিয়ে গাড়ি চলাচল তো দূরের কথা, হেঁটে পথ পাড়ি দিতেও চরম বিড়ম্বনার মধ্যে পড়তে হচ্ছে পথচারীদের। স্থানীয়দের অভিযোগ মাটি ব্যবসায়ীদের লাইন্সেবিহীন ট্রাক্টর-ডাম্পার, ট্রলি পাকা রাস্তা দিয়ে নিয়মিত মাটি বহন করে থাকে। এই ট্রলি থেকে মাটি পড়ে রাস্তার বেহাল দশার সৃষ্টি হয়। এই মাটি রোদের সময় ধুলা আর বৃষ্টির সময় পিচ্ছিলকর কাদায় পরিনত হয়। এখন সামান্য বৃষ্টি হওয়াতে পাকা রাস্তাগুলো কাদাময় হয়ে পড়েছে, চলাচলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে বেড়েছে দুর্ভোগ। এক মোটরসাইকেল চালক জানান মাটিবাহি যানবাহন থেকে রাস্তায় পড়ে যাওয়া মাটি রোদের সময় রাস্তায় শুকিয়ে ধুলা আর বর্ষায় কাঁদা হয়ে থাকে, দেখে বুঝার উপায় থাকে না এটা পিচের রাস্তা!এলাকাবাসি জানিয়েছেন জনগুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তা গুলোতে যদি এখনই কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা না যায়, আর এ অবস্থা যদি চলতে থাকে, তাহলে এই রাস্তাগুলো মাটি বাহি ট্রলির কারনে একেবারেই চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। বর্ষার শুরুতে দূর্ভোগ বেশি বাড়ে, এজন্য এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী হয়ে পড়েছে। না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। মাটি বহন করা ট্রলি চালকদের বিরুদ্ধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তক্ষপ কামনা করেন ভূক্তভোগী পথচারী রা।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *