নিজস্ব প্রতিনিধি: অযোধ্যার রাম মন্দির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বেরিয়ে পড়লেন উত্তর ২৪ পরগনার গোবরডাঙ্গা দুই বন্ধু সৌমিক এবং রাকেশ। লক্ষ্য করার মতো দেখা গেল সৌমিক হালদারের একটি পা নেই।সাইকেলে করে উত্তর ২৪ পরগনা থেকে অযোধ্যায় যাচ্ছেন এই দুই বন্ধু।রামের ভক্ত তিনি নিজের চোখে দেখতে চান রাম মন্দিরের প্রতিষ্ঠা।তাই বন্ধু রাকেশ মন্ডলের সঙ্গে সাইকেল নিয়ে পাড়ি দিয়েছেন রাম মন্দির অযোধ্যার উদ্দেশ্যে।
৯তারিখে সাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে রওনা দিয়েছেন তারা।তাদের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সমস্ত প্রান্তের মানুষজন।১১তারিখ শনিবার এমনি এক দৃশ্য ধরা পড়লো বাংলা ঝাড়খণ্ড সীমানার লেফ্ট ব্যাংক অঞ্চলে।শুক্রবার রাতে তারা লেফ্ট ব্যাংক অঞ্চলে একটি আশ্রমে রাত কাটান।সেখানে তাদের থাকা খাওয়ার ব্যাবস্থা করে আশ্রম কর্তৃপক্ষ।পাশাপাশি এলাকার সমাজসেবী তথা বিজেপি নেতা সত্যনারায়ণ রায়,দুই যুবককে ফুলের মালা পরিয়ে সন্মান জানান।তাছাড়া প্রায় মানুষজন তাদের আর্থিক সাহায্য করেন।কারণ একটাই তারা যেনো সুস্থ্য সবল অযোধ্যা পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে।এই প্রসঙ্গে সত্যনারায়ণ রায় জানান শুক্রবার রাতে তিনি দেখেন দুই যুবক মিলে সাইকেল করে বাংলা ঝাড়খণ্ড সীমানা পার করছেন।যার মধ্যে একজনের একটি পা নেই।তাদের জিজ্ঞাসা তারা বলেন সাইকেল নিয়ে অযোধ্যা যাচ্ছেন।তিনি তাদের সেবার জন্য দুজনকেই স্থানীয় লেফ্ট ব্যাংক আশ্রমে নিয়ে আসেন রাতে।তাছাড়া তারা রাম মন্দির যাবার জন্য দুজন মিলে সাইকেলের পথ বেছে নিয়েছেন তাই তাদের ফুলের মালা পরিয়ে বিশেষ সন্মান জানালাম।
সৌমিক হালদার ও রাকেশ মন্ডল জানান সবাই তো বাস ট্রেন করে যাচ্ছে।তাই আমরা উদ্যোগ নিয়েছি সাইকেলে যাবার।আমাদের সনাতনী ধর্মের কাছে এই রাম মন্দির একটা বিশাল পাওনা।রাম লালার স্থাপনা নিজের চোখে যাতে দেখতে পারি তাই বাড়ি থেকে বের হয়েছি।আমাদের বিশ্বাস আমরা ২০ তারিখ পর্যন্ত অযোধ্যা পৌঁছে যেতে পারবো, আমারও ধন্যবাদ জানাই সমস্ত মানুষকে যারা আমাদের এই যাত্রায় সাহায্য করে চলেছেন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *