সঙ্কেত ডেস্ক: সন্দেশখালি নিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট তলব করলেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। নবান্নকে পুরো পরিস্থিতি বিস্তারিতভাবে জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর।
গত কয়েক দিন থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সন্দেশখালি। জেলিয়াখালিতে শিবু হাজরার তিনটি পোলট্রি ফার্ম ও বসত বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। লাঠি হাতে রাস্তায় নামেন এলাকার মহিলারা। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, বেশ কয়েক বছর ধরে চাষের জমি ও খাল দখল করে একের পর এক ভেড়ি তৈরি করেছেন উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের সদস্য শিবপ্রসাদ হাজরা এবং সন্দেশখালি গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল অঞ্চল সভাপতি উত্তম সর্দার। জমিতে চাষের পর গ্রামবাসীরা তাঁদের প্রাপ্য পাননি। এতদিন শেখ শাহজাহানের ভয়ে মুখ খুলতে পারেননি বলেও দাবি গ্রামবাসীদের। শেখ শাহজাহান বেপাত্তা হতেই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। সব মিলিয়ে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় এলাকা। সেই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতির মধ্যেই এবার কড়া পদক্ষেপ প্রশাসনের।গতকাল রাতেই বিশাল বাহিনী দিয়ে সন্দেশখালি থানা এলাকা ঘিরে ফেলে পুলিশ, শুরু হয় রুটমার্চ। পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরাও রাতের মধ্যেই সন্দেশখালি পৌঁছান। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আরও পুলিশ ফোর্স বাড়ানো হচ্ছে। দোকানপাট বন্ধ রয়েছে এলাকায়।‘অশান্ত’ সন্দেশখালিতে জারি করা হয় ১৪৪ ধারা। সন্দেশখালি ১ এবং ২ এলাকা জুড়ে মোট ১৬ টি পঞ্চায়েত জুড়ে এই ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। শনিবার সকালেও সন্দেশখালির গোটা এলাকায় রয়েছে থমথমে পরিবেশ । শুনশান রাস্তাঘাটে বন্ধ দোকানপাট। ইন্টারনেট পরিষেবাও বন্ধ করা হয়েছে।

এদিকে তৃণমূলের তরফে ৬ বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা উত্তম সর্দারকে। রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ ভৌমিক এই ঘোষণা করেন। উত্তম সরদারের সাসপেনশনে প্রশ্ন উঠছে, সন্দেশখালির আরেক অভিযুক্ত শিবপ্রসাদ হাজরাকে কেন ছাড় দেওয়া হল। আর কেন এখনো গ্রেফতার হল না সন্দেশখালির বাঘ শেখ শাহজাহান। ইডির ওপর হামলার ৫ সপ্তাহ পরেও কোথায় সে?

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *