সংবাদদাতা, কলকাতা: অখিলভারত হিন্দুমহাসভা রাজ্য সভাপতি ডক্টর চন্দ্রচূড় গোস্বামীর উদ্যোগে আজ শহর কলকাতার বিভিন্ন রাস্তার কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ কর্মী ও সার্জেন্টদের সকাল থেকে ঠান্ডা জল, গ্লুকোজ, সরবৎ , গোলাপ ফুল এবং গ্রিটিংস কার্ড দিয়ে সম্মান জ্ঞাপন করলো হিন্দু মহাসভার সদস্যরা । টালিগঞ্জ ট্রামডিপো, করুণাময়ী মোড়, টালিগঞ্জ ফাঁড়ি, রাসবিহারী মোড়, গড়িয়াহাট, রুবি হাসপাতাল মোড়, যাদবপুর , চেতলা মোড় সহ একাধিক স্থানে অন্তত একশোজন কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ কর্মীদের জন্য এই আয়োজন করে ছিলেন ডক্টর চন্দ্রচূড় গোস্বামী, শ্রাবণী মুখার্জী, অনামিকা মন্ডল সহ হিন্দু মহাসভার একাধিক সদস্যরা । হঠাৎ কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ কর্মীদের জন্য এই রকম অভিনব ভ্রাম্যমাণ জলোছত্র উদ্যোগ নেওয়ার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে ডক্টর চন্দ্রচূড় গোস্বামীর স্পষ্ট বক্তব্য “এই তপ্ত রৌদ্রে আমাদের ট্রাফিক পুলিশ বন্ধুরা যেভাবে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ডিউটি করছেন তাতে আমরা সবাই ওনাদের কাছে কৃতজ্ঞ । আমরা অনেকেই বিভিন্ন ক্ষেত্রে পুলিশ কর্মীদের অনেক দোষারোপ করি কিন্তু আমরা একবারও ভেবে দেখিনা পুলিশ কর্মীরাও মানুষ, তাঁরা নিজেদের ডিউটি পালন করেন । তাঁদের ওপরে অনেক ক্ষেত্রে অনেক চাপ থাকে । তাঁদেরও ঘর ও পরিবার রয়েছে । আজ থেকে আগামী তিনদিন আমরা অখিলভারত হিন্দুমহাসভার সহযোদ্ধারা শহর কলকাতার বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে ডিউটিরত ট্রাফিক পুলিশ কর্মীদের জন্য লাল গোলাপ, ঠান্ডা জল, গ্লুকোজ এবং সরবৎ সরবরাহের মাধ্যমে সমাজের রিয়াল হিরোদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা প্রদর্শন করছি । তবে যেহেতু ট্রাফিক পুলিশ বন্ধুরা কর্তব্যরত অবস্থায় ড্রেস পড়ে আছেন তাই আমরা কোন রাজনৈতিক ব্যানার, পোস্টার, প্ল্যাকার্ড ,পতাকা বা কোন চিহ্ন ব্যবহার করিনি এই অভিনব ভ্রাম্যমাণ জলোসত্র অনুষ্ঠানে”। তিনি আরও বলেন “এই বছর বর্ষাঋতু আসতে দেরি হচ্ছে , প্রায় রোজ দিন আবহাওয়া অফিস বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা বললেও বৃষ্টি হচ্ছেনা । আমাদের স্থির বিশ্বাস আমাদের এই অভিনব কর্মসূচির পর খুব তাড়াতাড়ি বর্ষাকাল এসে যাবে কারণ আজ হিন্দু মহাসভার সহযোদ্ধারা সকাল থেকে নির্জলা একাদশীর উপবাস করে এই জালোসত্র অনুষ্ঠান করছি । হিন্দুধর্ম বলে যত্র জীব তত্র শিব, তাই এইভাবে আমরা মানুষের সেবা করলে প্রকৃতিদেবী নিশ্চই খুশি হবেন”। হিন্দু মহাসভার অফিস সেক্রেটারি শ্রাবণী মুখার্জী বলেন গতকাল কাঞ্চনজঙ্ঘা রেল দুর্ঘটনা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক । এই দুর্ঘটনায় মৃত ব্যক্তিদের পরিবারের প্রতি গভীর মর্মবেদনা জানিয়ে আমরা আজ কালো ব্যাজ পড়ে জলসত্র অনুষ্ঠান পালন করলাম । আমরা আগামী দিনে ট্রাফিক পুলিশ কর্মীদের জন্য বেশ কিছু জায়গায় স্থায়ী ঠান্ডা জল সরবরাহের ব্যবস্থা করতে চাই । হিন্দু মহাসভার চব্বিশ পরগনা জেলার প্রচার প্রমুখ অনামিকা মণ্ডলের বক্তব্য শুধু একদিন নয় সারা বছর বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা সাধারণ মানুষ সহ পুলিশকর্মী বন্ধুদের পাশে থাকার চেষ্টা করি । ভারতবর্ষের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল রাজনীতির বাইরে বেরিয়ে এসে যে সামাজিক মৈত্রীর দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো তা এক কথায় অনবদ্য ।*

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *